শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ:
ধামগড় ইউঃ শ্রমিক লীগের সাধাঃ সম্পাদক খোকনের মায়ের মৃত্যুতে সভাপতি মোশারফের শোক বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে সনমান্দী ইউপি’র ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের সবাইকে পরি বানু’র শুভেচ্ছা ধামগড় ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি হলেন গাজী আঃ কাদির ধামগড় ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত// সভাপতি মোশারফ ও সম্পাদক খোকন আমরা অহিংস ও নিরস্ত্র যুদ্ধ করবো-ভিপি বাদল মেয়র হাছিনা গাজীকে ও কাউন্সিলর আতিকুর রহমানকে পুনরায় নির্বাচিত করতে মতবিনিময় সভা আব্দুল হাই ভূঁইয়া’র ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এড. শাহাজাদা ভূঁইয়া’র গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি জামপুর ইউনিয়নের মাঝেরচরে শেখ রাসেল শিশু কিশোর ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন মদনপুর ইউনিয়ন আ’লীগের উদ্যোগে ও শেখ রুহুল আমিনের সৌজন্যে ভিপি বাদলের মাস্ক বিতরণ বন্দরের মিনারবাড়িতে বঙ্গবন্ধু পাঠাগারের সৌজন্যে ভিপি বাদলের মাস্ক বিতরণ

শোকের মাস আগস্ট জুড়ে নানান ঘটনায় ফের আলোচনায় বন্দর উপজেলা

বন্দর প্রতিনিধি  : আগষ্ট জাতীয় শোকের মাস। শোকের মাসে বন্দর উপজেলা এলাকা নানা ঘটনায় ফের আলোচনায়। ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোকের দিনে বন্দরবাসী হারিয়েছে নারায়নগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহেরকে । বন্দরে কিশোর গ্যাং এর দুই গ্রুপের সংঘর্ষ ও  ধাওয়া প্লাটা ধাওয়ার ঘটনায় প্রান রক্ষার্থে শীতলক্ষা নদীতে ঝাঁপিয়ে পরে নিহত দুই শিক্ষার্থী লাশ উদ্ধারের ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহত স্কুল ছাত্রের পিতা বন্দর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক কাজিম আহাম্মেদ বাদী হয়ে ১৩ জনের নাম উল্লেখ্য করে এবং অজ্ঞাত ৮ জনকে আসামী করে বন্দর থানায় এ হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- ১৫(৮)২০ ধারা- ১৪৩/ ৩০২/২০১/৩৪ দঃবিঃ। এ ঘটনায় পুলিশ ইতোমধ্যে এজাহারভুক্ত ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।  এ ঘটনায় পুলিশ গ্রেফতারকৃত আলভীকে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী নেয়। পরে প্রত্যক্ষদশী ও ২ জন স্বাক্ষীকে আদালতে জবানবন্দী নেয়।

মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফিরেছেন রায়হান কবিরঃ

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে অভিবাসী শ্রমিকদের প্রতি মালয়েশিয়া সরকারের আচরণের সমালোচনা করে কাতারভিত্তিক আল-জাজিরা টেলিভিশনের একটি ডকুমেন্টরিতে দেওয়া সাক্ষাৎকার প্রকাশের পর গত ২৪ জুলাই রায়হানকে গ্রেপ্তার করে মালয়েশিয়ার পুলিশ।
মহামারীর মধ্যে অভিবাসীদের প্রতি মালয়েশিয়া সরকারের আচরণ নিয়ে গণমাধ্যমে কথা বলায় সেখানে গ্রেপ্তার বাংলাদেশি শ্রমিক রায়হান কবির দেশে ফিরে এসেছেন। শুক্রবার রাত ১টার দিকে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের পর পরিবারের সদস্যরা রায়হানকে অভ্যর্থনা জানান।
রায়হানকে সেখানে অভ্যর্থনা জানাতে আরও উপস্থিত ছিলেন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান।
দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে তিনি বলেন, “বাবা-মায়ের কাছে নিজ দেশে রায়হান ফিরে আসার পর বিমানবন্দরে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।”
রায়হান কবিরের বাবা শাহ আলম গণমাধ্যমকে বলেন, “সে এখন আমার কাছে আছে এবং সুস্থ আছে। আমার ছেলেকে ফিরে পেতে আপনারা সাংবাদিকরা সবচেয়ে বেশি সহায়তা করেছেন। তাই আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। তাকে ফিরে পেয়েছি এতেই খুশি, তার পাশে দাঁড়ানোর জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।”
করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে অভিবাসী শ্রমিকদের প্রতি মালয়েশিয়া সরকারের আচরণের সমালোচনা করে কাতারভিত্তিক আল-জাজিরা টেলিভিশনের একটি ডকুমেন্টরিতে দেওয়া সাক্ষাৎকার প্রকাশের পর গত ২৪ জুলাই রায়হানকে গ্রেপ্তার করে মালয়েশিয়ার পুলিশ।
আল জাজিরার ওই ডকুমেন্টরিতে তিনি বলেন, মহামারীর মধ্যে অবৈধ শ্রমিকদের আটক ও জেলে পাঠানোর মাধ্যমে মালয়েশিয়া সরকার বৈষম্যমূলক আচরণ করছে। এটা কোনো মানবিক আচরণ হতে পারে না।
তবে দেশটির সরকারের কর্মকর্তারা আল জাজিরার ওই খবর ‘ভুল, বিভ্রান্তিকর এবং অন্যায্য’ বলে দাবি করেন। ওই প্রতিবেদন সম্প্রচারের পর দেশটিতে ক্ষোভের সঞ্চার হলে রায়হানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ তাকে ধরিয়ে দিতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানায়। প্রকাশ করে তার ছবি সহ বিস্তারিত তথ্য। তার ওয়ার্ক পারমিট বাতিল করা হয়। ঘোষণা দেয়া হয় তাকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে। তিনি মালয়েশিয়ায় চিরদিনের জন্য নিষিদ্ধ হবেন।
নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করে রায়হান কবির বলেন, “এই আনন্দ প্রকাশ করার মতো নয়। গত ৬ বছরে আমি অনেকবার দেশে এসেছি। আবার গিয়েছি। কিন্তু এবারকার অনুভূতি ভিন্ন। আমার বাংলাদেশ, আমার মার্তৃভূমি, আমার মা, আমার পিতামাতা…এই অনুভূতি আমি কাউকে বোঝাতে পারবো না। আপনাদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা। কৃতজ্ঞতা দেশে ও বিদেশে যারা আমার পাশে ছিলেন সবার প্রতি।”
মালয়েশিয়ায় রায়হান কবিরের পক্ষে আইনি লড়াই করেন সুমিতা সান্তিনি কৃষ্ণা এবং সেলভারাজা চিন্নিয়া। গণমাধ্যমের প্রশ্নের জবাবে সুমিতা বলেছেন, শুক্রবার বিকালে পুত্রজয়া ইমিগ্রেশন অফিস থেকে সরাসরি বিমাবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয় রায়হানকে। সব প্রক্রিয়া শেখ করার পর তাকে স্থানীয় সময় রাত ১১টায় একটি বিমানে তুলে দেয়া হয়। এ সময় তার করোনা ভাইরাস টেস্ট নেগেটিভ ছিল। যেহেতু তার বিরুদ্ধে কোনো মামলা করেনি মালয়েশিয়া পুলিশ, তাই তাকে কোনো আইনগত জটিলতায় পড়তে হয় নি।

লোহার শিক ঢুকে যুবকের মৃত্যুঃ

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে দেয়াল টপকাতে গিয়ে লোহার শিক পেটে ঢুকে মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে আলাউদ্দিন নামের এক যুবক। ২৫ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে বন্দরের একরামপুর ইস্পাহানি এলাকায় ৩নং গলিতে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আলাউদ্দিন যে দেয়ালটি টপকানোর চেষ্টা করছিল তার পাশে ধারালো লোহার দন্ড দেয়া একটি বেড়া ছিল। সকালে দেয়াল টপকাতে গিয়ে আলাউদ্দিনের হাত পিছলে যায় এবং সে ওই লোহার ধারালো দন্ডের উপর গিয়ে পরে। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
এ বিষয়ে বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফখরুদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। লোহার শিকে পরে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

 জাপা নেতা আবুল জাহেরের মৃত্যুঃ

নারায়নগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে বেশ প্রভাবশালী নেতা ছিলেন আবুল জাহের। দীর্ঘ ৪০ বছরের রাজনীতি জীবনে জাতীয় পার্টি ছাড়া অন্য কোন দল বুঝতেন না। প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমানের আস্তাভাজন ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের। নাসিম ওসমানের মৃত্যু)’র পর তার ভাই সেলিম ওসমান এমপি হওয়ার পর তার উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও নিজের কোন চাহিদা ছিল না। শুধু বন্দরবাসীর উন্নয়ন করা যায় কিভাবে তা নিয়ে চিন্তা করতেন ।গত ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোকের দিনে বন্দরবাসীকে শোকেজর্জরিত করে না ফেরার দেশে চলে যান আবুল জাহের। এমন একটি দিনে তার মৃত্যু হয় যা বাংলাদেশ যতদিন থাকবে, ১৫ আগষ্ট ততদিন পালন হবে আর বন্দরেও পালন হবে আবুল জাহেরের মৃত্যু বার্ষিকী। আবুল জাহের জাতীয় পার্টির হলেও বক্তব্য শেষে সব সময় জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু বলে শেষ করতেন বলে জানান বন্দর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ রশিদ।

মৃত ব্যাক্তির পরিবারের সাথে যোগাযোগ বন্ধঃ

সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় করোনা ভাইরাস। আর তাই কোন বয়স্ক ব্যক্তি বা শ্বাসকষ্টজনিত কারণে কারোর মৃত্যু হলে তা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে বলে অনেকে ধারণা করে নেন। মাঝে মাঝে রিপোর্ট ছাড়াই করোনায় মারা গেছেন এমন অপপ্রচার চালানো হয় এবং মৃত ব্যক্তির পরিবারের সাথে যোগাযোগ ও সেই বাড়ীতে অনেকে আসা যাওয়া বন্ধ করে দেন। এমন ঘটনাই ঘটেছে বন্দর উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বাজুরবাগ গ্রামের আঃ কাদির বেপারীর সাথে।
মরহুম আঃ কাদির বেপারীর পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ২১ আগস্ট শুক্রবার আঃ কাদির শ্বাসকষ্টজনিত কারণে সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ডে অবস্থিত প্রো-অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটালে ভর্তি হন এবং সেদিনই তার করোনা টেস্টের জন্য স্যাম্পল দেয়া হয়। তিনি ২৩ আগস্ট রোববার হার্ট অ্যাটাক করে মারা যান এবং করোনার রিপোর্ট হাতে না পাওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সেদিনই তার দাফন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়। এদিকে তিনি করোনায় মারা গেছেন এমন বিষয়টি ধারণা করে অনেক আত্মীয়স্বজন এবং পাড়া প্রতিবেশীরা তাদের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা সহ তাদের বাড়ীতে অনেকে আসা যাওয়া বন্ধ করে দেন বিধায় আঃ কাদির বেপারীর পরিবারের সদস্যরা মানসিকভাবে হীনমন্যতায় ভুগতে থাকেন।
অবশেষে ২৫ আগস্ট মঙ্গলবার তার পরিবারের কাছে তার করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট আসে এবং এর ফলে মরহুম আঃ কাদির বেপারীর পরিবার সহ স্থানীয়দের মধ্যে চলমান আতংক কেটে যাবে বলে আশা করছেন বিশিষ্টজন সহ সর্বস্তরের সকলে।

মানবিক সাহায্য চেয়েও ব্যার্থঃ

নাসিক ২৭নং ওয়ার্ডের (বন্দরের) কুড়িপাড়ার বাসিন্দা আঃ রব (৫২) ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত এবং অর্থের অভাবে তিনি চিকিৎসা নিতে পারছেন না বলে জানান অত্র ২৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান বাবুল।
সরেজমিনে আঃ রব এর বাসায় গিয়ে তার দৈন্যদশার এ চিত্র চোঁখে পড়ে। তার এই অসহায়ত্বের কথা চিন্তা করে দানশীল ও পরোপকারী আগ্রহী ব্যক্তিরা (০১৬৮০৯৬৮৬৬৭) বিকাশ পার্সনাল নাম্বারে অথবা ২৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান বাবুলের কার্যালয়ে যোগাযোগ করে তাকে চিকিৎসা সাহায্য পাঠানোর অনুরোধ জানিয়েছেন ভূক্তভোগী ও অসুস্থ আঃ রব।

২ টি কিডনি নষ্ট, সাহায্যের আবেদন চেয়েও হতাশ!

বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মদনপুর এলাকার নাসির মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া জান্নাত আক্তার (২৬) এর ২টি কিডনি নষ্ট হয়ে গেছে এবং অর্থের অভাবে গরিব ও হতদরিদ্র পরিবারের মেয়েটি চিকিৎসা নিতে পারছে না বলে জানান মদনপুর ইউনিয়ন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও এডুকেশন পার্ক কিন্ডার গার্টেন এন্ড হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ মনোয়ার হোসেন।
জান্নাত আক্তার বন্দর উপজেলার ফরাজীকান্দা রেল লাইন এলাকার বাসিন্দা লোকমান হোসেনের কন্যা বলে জানা গেছে এবং বর্তমানে সে তার মায়ের সাথে মদনপুরে ১টি ভাড়া বাড়িতে থাকে এবং তার মা বিভিন্ন জায়গায় কাজ করে খুব কষ্ট করে সামান্য ভরণ পোষণ বহন করলেও তার চিকিৎসার খরচ চালাতে পারছে না। আগষ্ট মাস বন্দর উপজেলা বাসীর জন্য নানা আলোচনা ও সমালোচনার কেন্দ্রু-বিন্দুতে ছিল।

বন্দরে জাতীয় শোক দিবস  উপলক্ষ্যে মসজিদ ও মাদ্রাসায় অনুদান প্রদানঃ

বন্দর প্রতিনিধি //১৫আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস  উপলক্ষ্যে নারায়নগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভি পক্ষে ২৫ নং ওয়ার্ডে লক্ষন খোলা দারুস সালাম হাফেজিয়া কওমী মাদ্রাসা ও এতিম খানায় রোববার  সকাল দশটায় নারায়নগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক মোঃ নূর হোসেনের উদ্যোগে ১০ টি মসজিদ,মাদ্রাসার উন্নয়নে নগদ অর্থ (বিশ হাজার)প্রদান করা হয়। লক্ষন  খোলা দারুস সালাম হাফেজিয়া কওমী মাদ্রাসা ও এতিম খানার অর্থ  মাদ্রাসা মুহতামিম মাওলানা মোঃ শহিদুল ইসলাম শাহিনের হাতে প্রদান করেন লক্ষন খোলা জামে মসজিদ (ছোট সমাজ) সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক মোঃ নূর হোসেন, উত্তর চৌরাপাড়া জামে মসজিদ কমিটির সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা  এডভোকেট আল আমিন,বিশিষ্ট সাংবাদিক আতাউর রহমান,  লক্ষন খোলা বাইতুন নুর জামে মসজিদ কমিটির ক্যাশিয়ার মোঃ হাসান, পূর্ব লক্ষন খোলা (বাগবাড়ী)জামে মসজিদের সদস্য মোঃ সোহেল, সমাজ সেবক মোঃ দেলোয়ার হোসেন সাউদ উপস্থিতিতে অর্থ প্রদান করা হয়। অন্যান মসজিদের অনুদান মসজিদ কমিটির কাছে পৌছে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধ কামনায় বঙ্গবন্ধু সহ সকলের মুরব্বিদের আত্নার মাগফিরাত কামনা করে এবং দেশরত্ন জননেএী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুসাস্হ্য ও দীর্ঘায়ু জীবন কামনা করে দোয়া করা হয়।

কি মধু বন্দর হাসপাতালে  হালচাল-পর্ব- ৩ ফিরে আসছে দূর্নীতির দায়ে বদলীকৃতরা!

বন্দর প্রতিনিধি // বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে দূর্নীতির দায়ের বদলীকৃত অফিস বয়, তৃতীয় শ্রেনীর কর্মচারীসহ ডাক্তাররা ফিরে আসতে শুরু করেছে। নানা প্রকার অনিয়ম, দূর্নীতির দায়ে মন্ত্রনালয় হতে তাদের বদলী করলেও তারা পুনরায় বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে যোগদান করতে শুরু করেছে। দূর্নীতি গ্রস্তরা হাসপাতালে যোগদান করায় সচেতন মহলে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। দূর্নীতির দায়ে সেকমো আছমা বেগম, নায়েব আলীসহ ৬ জনকে বদলী করা হয়। গত বছরের ১৯ জানুয়ারি স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি টিম পরিদর্শনে আসে হাসপাতাল। ওই সময় বিভিন্ন অভিযোগে তাদের বদলী করেন। বন্দর থেকে বদলী করে দেয়া হয়েছিল জাহাঙ্গীর আলম (উপ সহকারী মেডিকেল অফিসার), খাদিজা আক্তার পপি(উপ সহকারী মেডিকেল অফিসার), সেকমো আছমা বেগম ও নায়েব আলী,
মোঃ জাহাঙ্গীর বাদশা(প্রধান অফিস সহকারী),  মোঃ আবুল খায়ের(সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক) কে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য ককমপ্লেক্স হাসপাতালে বলদী করে। কয়েক মাস না যেতেই সদ্য বদলীকৃত ইনচার্জ আব্দুল কাদেরর সহযোগীতায় ৪ জনই পুনরায় পূর্বের জায়গায় আসে। হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার পর থেকে তারা ওই খানে দায়িত্ব পালন করেন। নানা অভিযোগ থাকলেও দেখার কেউ ছিল না। তাদের পুনরায় যোগদান করাকে ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখছে সচেতন মহল। অনেকে বলেন, কি মধু এ হাসপাতালে যে, দূর্নীতির দায়ে বদলী হয়ে পুনরায় এখানে কেন। তারা কি হাসপাতালকে পুনরায় দূর্নীতির আখড়ায় পরিনত করবে।
উল্লেখ্য, গত বছরের ১৯ জানুয়ারি স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের  ৫ সদস্যের টিম পরিদর্শনে আসে। পরিদর্শনকে কেন্দ্র করে হাসপাতাল যেন নতুন রুপে ধারন করছিল। ছুটির শুক্রবার দিন থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত হাসপাতালের দেয়ালে চুন, ভিতরে পরিস্কার, নথিপত্র সকল কিছু মিল করে রাখার জন্য রাত্রেও দেখা যায় সকলেই ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছে।
সূত্র মতে, নানা সমস্যায় জর্জড়িত বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালটি। ডাক্তার ও ঔষধের সেবার মান আগের তুলনায় ভাল হলেও কাঠামোগত দিক দিয়ে সমস্যার অন্ত নেই। হাসপতালের ভাউন্ডি দেয়ালগুলো ভাঙ্গা, দাড়োয়ান নেই বলে বহিরাগতদের আড্ডা বেশি বলে ডাক্তারদের দাবী। সরজমিন ঘুরেও দেখা মিলে দেয়াল ভাঙ্গা, গার্ড নেই। এমন সংবাদ প্রকাশ হয় দৈনিক শীতলক্ষা পত্রিকায়। গত বছরের ১৬ জানুয়ারি সংবাদ প্রকাশ হয়। বহিরাগতরা প্রবেশ করে গাছের ডাবসহ বিভিন্ন গাছের ফল নিয়ে যায় আর মাদক সেবীদের অসহনীয় অত্যাচার সহ্য করতে হচ্ছে।

অন্ধকার একটি হাসপাতালের মূল ফটকে নেই কোন নৈশ্য প্রহরী ও আলো!

টেসার বয় চালক- হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স চালাচ্ছে একজন টেসার বয়। প্রায় ৭/৮ বছর যাবত টেসার বয়(টলি ম্যান) আলমগীর রহস্যজনক কারনে চালকের দায়িত্ব পালন করলেও বেতনসহ সকল কিছুই সরকারী ভাবে পাচ্ছে টেসার বয়ের। তবে মাসিক ২শ’৫০ ঘন্টা টি এ বিলসহ অন্যান্য সুযোগ- সুবিধা চালক হিসাবে আলমগীর ভোগ করলেও বেতন পান টেসার বয়ের বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে । যা নিয়ে সর্ব মহলে চলছে নানা গুঞ্জন। প্রতি কিলোমিটার আসা-যাওয়ার জন্য ২০ নির্ধারিত করা। বেশি নেয়ার অধিকার কারো নেই। এ নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা।
সূত্রে প্রকাশ, আলমগীর মূলত এ্যাম্বুলেন্স চালক না। আলমগীর একজন টেসার বয় রোগীউঠা-নামানোর জন্য যে টলি ব্যবহার করা হয় তাকেই টেসার বয় বলে । আউট সুসিং হিসেবে ২ জন চালক নিয়োগ হলেও টেসার বয়ই চালক। বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে তিনি এখন এ্যাম্বুলেন্স চালক। প্রতি মাসে প্রায় ১ থেকে দেড় লাখ টাকা উর্পাজন করে আলমগীর। আর দূর্ভোগ পোহাচ্ছে সাধারন লোকদের, দূর্নাম হচ্ছে সরকারের।
নব যোগদানকারী বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডাক্তার মেহেরুবা আক্তার বলেন, এমপি মহোদয় ব্যক্তিগত ভাবে আমাদের দুটি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে ছিলো বলেই আমরা বন্দরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে রোগীর নমুনা সংগ্রহ করতে পেরেছি। আমাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে আলট্রাস্নোগ্রাম মেশিন, প্যাথলজি, অপারেশন থিয়েটার, গ্যাস সংযোগ, নিরাপত্তার জন্য সিসি টিভি ক্যামেরা, ২৫০ কেভির একটি জেনারেটর সহ সকল কিছুর ব্যবস্থা রাখতে চাই। কিন্তু আমি হাসপাতালে যোগদান করেই দেখি সমস্যার কোন শেষ নেই। হাসপাতালে তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী, ওর্য়াডবয়সহ কিছু ডাক্তারের সংকট আছে। এগুলো থাকলে বন্দর থানা এলাকার কোন রোগীকে চিকিৎসার জন্য শহরে যেতে হবে না। হাসপাতালের ইনচার্জ ডাক্তার মেহেরুবা আক্তারের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা সচেতন মহলের।
নিউজটি শেয়ার করুন:

আপনার মতামত কমেন্টস করুন


© All rights reserved © 2019 Newsnarayanganj71
Design & Developed BY N Host BD